প্রসঙ্গ: বাংলাদেশ ক্রিকেট – আমরা আন্তরিক ভাবে দুঃক্ষিত

আমাদের সময়কার এসএসসি বা এইচএসসি পরীক্ষার কথা হয়ত এখনকার জিপিএ ৫ পাওয়া ছেলে মেয়েরা কখনো অনুভব করতে পারবে না। আবার আমাদের আগের প্রজন্ম যারা ছিল – তারা ও বুঝতে পারবে না।  কেননা ৫০০০ MCQ মুখস্ত করে ৫০০ নম্বর তুলে ফেলতে পারত তারা। আমরা ছিলাম এমন একটা শিক্ষা ব্যবস্থার সময় – যখন ছিল সত্যিকারের মেধা যাচাই এর স্বর্ণ যুগ। কেন?

প্রথমত, সেই সময়কার শিক্ষা মন্ত্রী হয়ত উচ্চ পাশের হার কে সফলতা অনুধাবনই করতে পারেন নাই।  পারলে হয়ত জিপিএ ৫ নামের এই রকম উদ্ভট শিক্ষা ব্যবস্থার অবতারণা তখনই করে ফেলতেন। এখন নম্বর তোলা কতটা সহজ বা কতটা কঠিন সেই প্রসঙ্গে নাহয় না ই গেলাম। সে এক বিরাট ইতিহাস হয়ে দাড়াবে।

আমি ছিলাম মাঝারি  গোছের ছাত্র।  তাই পরীক্ষার খাতায় প্রাপ্ত নম্বর এর প্রথম টার্গেট ছিল লেটার (মানে ৮০+)। রেসাল্ট বলার সময় যত বেশি বিষয়ে লেটার তত ভাব চলে আসত। এখনকার জিপিএ ৫ কিন্তু ওই আমাদের সময়কার লেটার মার্কই। আমার মত ছাত্ররা ৫।৬ টা লেটার পেয়ে অনেক খুশি হতাম। কিন্তু কিছু পাগল ছিল যারা আমাদের মত ছাত্র দের ২/৩ গুন বেশি পড়ালেখা করত।  এই ২/৩ গুন বেশি পড়ালেখা করে হয়ত আমাদের থেকে গুটি কয়েক (৮/১০ কিংবা ১৫) নম্বর বেশি পেত। এই গুটি কয়েক নম্বর বেশি পেয়ে ও তাদের কে বলতে হত লেটার মার্ক পেয়েছে। এখনকার জিপিএ ৫ এর হিসাবে আমি আর ওই পাগল গুলার ফলাফলের  মধ্যে কিন্তু কোনো তফাত নাই।  ৮০ পাওয়া যা ৯০/৯২ পাওয়া ও তা।

বাবারা – তখনকার পরিস্থিতি কিন্তু তা ছিল না। লেটার মার্ক এর উপরে পাওয়া ওই ৮/১০ নম্বর ও বিশার ফারাক করে দিত। কে কোথায় ভর্তি হবে – কে কোন বিষয় এর উপযোগী তা নিরুপন হত ওই নম্বর গুলোর উপর ভিত্তি করে। ২/৩ গুন কষ্ট করে পাওয়া ৮/১০ বেশি নম্বর ই বলে দিত কে কতটা সিরিয়াস ছাত্র।ছাত্রী এবং সেই অনুযায়ী নিরুপন হত তাদের (আমাদের) ভবিষ্যত।

Mashrafe Mortaza - we are sorry

বাংলাদেশের ক্রিকেট এর অবস্থা এখন আমার মত মাঝারি গোছের ছাত্রের মত।  বড় দল গুলার সারিতে তো এসে পড়েছে ঠিক ই – কিন্তু ঐযে ৮০ আর ৯০ এর ফারাক টা রয়ে গেছে। মাত্র ১০ নম্বর বেশি পাওয়ার জন্য যেমন ২/৩ গুন বেশি পরিশ্রম করতে হত – তেমনি বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে এইটুকুন ফারাক দূর করার জন্য ২।৩ গুন বেশি পরিশ্রম করতে হবে। ৮০ থেকে ৯০ পাবার জন্য শুধু মাত্র বই নিয়ে বসে থাকলে ই  হত না।  অতিরিক্ত পড়ালেখার পাশাপাশি অনেক ধরনের কৌশল অবলম্বন অত্যাবশ্যকীয় ছিল।  বাংলাদেশ দল কে ও তেমনি সারা দিন ব্যাট বল দিয়ে  লাফঝাপ করালে এর উন্নতি হবে না।  দরকার যথাযথ কৌশল এর। একটা দুর্বল।মাঝারি মানের ছাত্রের যেমন রাতারাতি ভালো ছাত্রে পরিনত হওয়া সম্ভব না – একটা ক্রিকেট দল কে ও রাতারাতি বিশ্বমানের করা সম্ভব না।  ক্রিকেট হচ্ছে পরিকল্পনার খেলা। খেলোয়ারদের যোগ্যতার পাশাপাশি দলীয় কৌশল ও বিরাট ভূমিকা রাখে। মাঠের বাইরের অনেক কিছু ও দলের ফলাফলের উপর ভূমিকা রাখে। আজকে যে দেশগুলার কাছে হেরে যাওয়ার কারনে আমরা আমাদের খেলোয়ারদের অপদস্ত করতে দিধা করি না – সেইসব দেশের ক্রিকেট এর ইতিহাস শতবর্ষ পুরানো। সেইসব দেশের খেলোয়াররা যা পরিশ্রমিক পায় – তার ১০ ভাগের এক ভাগ ও হয়ত আমরা আমাদের ছেলেদের দিতে পারি না।  আমাদের কে এইসব বাস্তবতা মেনে নিয়ে আবেগ কে সংযত করতে হবে।  দেশের প্রতিনিধিত্ব করতে যাদের পাঠিয়েছি তাদের কে আজ আমরা অপদস্ত করতে পিছপা হই না।  মাশরাফি – তোমাদের অর্জন যতটুকু ই হোক না কেন আমরা তোমাদের নিয়ে গর্বিত – সেই সাথে আমরা আন্তরিক ভাবে দুঃক্ষিত।

প্রসঙ্গ: বাংলাদেশ ক্রিকেট – আমরা আন্তরিক ভাবে দুঃক্ষিত

আমাদের সময়কার এসএসসি বা এইচএসসি পরীক্ষার কথা হয়ত এখনকার জিপিএ ৫ পাওয়া ছেলে মেয়েরা কখনো অনুভব করতে পারবে না। আবার আমাদের আগের প্রজন্ম যারা ছিল – তারা ও বুঝতে পারবে না।  কেননা ৫০০০ MCQ মুখস্ত করে ৫০০ নম্বর তুলে ফেলতে পারত তারা। আমরা ছিলাম এমন একটা শিক্ষা ব্যবস্থার সময় – যখন ছিল সত্যিকারের মেধা যাচাই এর স্বর্ণ যুগ। কেন?

প্রথমত, সেই সময়কার শিক্ষা মন্ত্রী হয়ত উচ্চ পাশের হার কে সফলতা অনুধাবনই করতে পারেন নাই।  পারলে হয়ত জিপিএ ৫ নামের এই রকম উদ্ভট শিক্ষা ব্যবস্থার অবতারণা তখনই করে ফেলতেন। এখন নম্বর তোলা কতটা সহজ বা কতটা কঠিন সেই প্রসঙ্গে নাহয় না ই গেলাম। সে এক বিরাট ইতিহাস হয়ে দাড়াবে।

আমি ছিলাম মাঝারি  গোছের ছাত্র।  তাই পরীক্ষার খাতায় প্রাপ্ত নম্বর এর প্রথম টার্গেট ছিল লেটার (মানে ৮০+)। রেসাল্ট বলার সময় যত বেশি বিষয়ে লেটার তত ভাব চলে আসত। এখনকার জিপিএ ৫ কিন্তু ওই আমাদের সময়কার লেটার মার্কই। আমার মত ছাত্ররা ৫/৬ টা লেটার পেয়ে অনেক খুশি হতাম। কিন্তু কিছু পাগল ছিল যারা আমাদের মত ছাত্র দের ২/৩ গুন বেশি পড়ালেখা করত।  এই ২/৩ গুন বেশি পড়ালেখা করে হয়ত আমাদের থেকে গুটি কয়েক (৮/১০ কিংবা ১৫) নম্বর বেশি পেত। এই গুটি কয়েক নম্বর বেশি পেয়ে ও তাদের কে বলতে হত লেটার মার্ক পেয়েছে। এখনকার জিপিএ ৫ এর হিসাবে আমি আর ওই পাগল গুলার ফলাফলের  মধ্যে কিন্তু কোনো তফাত নাই।  ৮০ পাওয়া যা ৯০/৯২ পাওয়া ও তা।

বাবারা – তখনকার পরিস্থিতি কিন্তু তা ছিল না। লেটার মার্ক এর উপরে পাওয়া ওই ৮/১০ নম্বর ও বিশার ফারাক করে দিত। কে কোথায় ভর্তি হবে – কে কোন বিষয় এর উপযোগী তা নিরুপন হত ওই নম্বর গুলোর উপর ভিত্তি করে। ২/৩ গুন কষ্ট করে পাওয়া ৮/১০ বেশি নম্বর ই বলে দিত কে কতটা সিরিয়াস ছাত্র/ছাত্রী এবং সেই অনুযায়ী নিরুপন হত তাদের (আমাদের) ভবিষ্যত।

Mashrafe Mortaza - we are sorry

বাংলাদেশের ক্রিকেট এর অবস্থা এখন আমার মত মাঝারি গোছের ছাত্রের মত।  বড় দল গুলার সারিতে তো এসে পড়েছে ঠিক ই – কিন্তু ঐযে ৮০ আর ৯০ এর ফারাক টা রয়ে গেছে। মাত্র ১০ নম্বর বেশি পাওয়ার জন্য যেমন ২/৩ গুন বেশি পরিশ্রম করতে হত – তেমনি বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে এইটুকুন ফারাক দূর করার জন্য ২/৩ গুন বেশি পরিশ্রম করতে হবে। ৮০ থেকে ৯০ পাবার জন্য শুধু মাত্র বই নিয়ে বসে থাকলে ই  হত না।  অতিরিক্ত পড়ালেখার পাশাপাশি অনেক ধরনের কৌশল অবলম্বন অত্যাবশ্যকীয় ছিল।  বাংলাদেশ দল কে ও তেমনি সারা দিন ব্যাট বল দিয়ে  লাফঝাপ করালে এর উন্নতি হবে না।  দরকার যথাযথ কৌশল এর। একটা দুর্বল/মাঝারি মানের ছাত্রের যেমন রাতারাতি ভালো ছাত্রে পরিনত হওয়া সম্ভব না – একটা ক্রিকেট দল কে ও রাতারাতি বিশ্বমানের করা সম্ভব না।  ক্রিকেট হচ্ছে পরিকল্পনার খেলা। খেলোয়ারদের যোগ্যতার পাশাপাশি দলীয় কৌশল ও বিরাট ভূমিকা রাখে। মাঠের বাইরের অনেক কিছু ও দলের ফলাফলের উপর ভূমিকা রাখে। আজকে যে দেশগুলার কাছে হেরে যাওয়ার কারনে আমরা আমাদের খেলোয়ারদের অপদস্ত করতে দিধা করি না – সেইসব দেশের ক্রিকেট এর ইতিহাস শতবর্ষ পুরানো। সেইসব দেশের খেলোয়াররা যা পরিশ্রমিক পায় – তার ১০ ভাগের এক ভাগ ও হয়ত আমরা আমাদের ছেলেদের দিতে পারি না।  আমাদের কে এইসব বাস্তবতা মেনে নিয়ে আবেগ কে সংযত করতে হবে।  দেশের প্রতিনিধিত্ব করতে যাদের পাঠিয়েছি তাদের কে আজ আমরা অপদস্ত করতে পিছপা হই না।  মাশরাফি – তোমাদের অর্জন যতটুকু ই হোক না কেন আমরা তোমাদের নিয়ে গর্বিত – সেই সাথে আমরা আন্তরিক ভাবে দুঃক্ষিত।

What is BDIX and what are the benefits of it?

BDIX is an IXP (Junction) where ISPs and other data service providers gets connected among themselves. It was established in 2004. It is a not-for-profit venture of the Sustainable Development Networking Foundation (SDNF) Bangladesh.

How IXP work

Why BDIX?

Internet Service providers used to get bandwidth from various upstream providers from various part of the world through- Submarine cable, VSAT, MicroWave Links etc. When data transmission from one ISP to another ISP was required – it used to go through the upstream providers round the world and come back to the destined ISP. I remember I had two different Internet  connection in my two PC and did a traceroute – and guess what!! There were 20+ nodes it had to pass from one IP to another. This created a lot of latency. Moreover, it was a very inefficient way of communication as data from one computer had to travel half of the world to reach the other one in my next room.

Some prominent ISPs in Bangladesh could well understand the fact and was eager to create an exchange among them so that local Internet traffic may routed locally. Year 2004 – United Nations Development Programme (UNDP) took the initiative through the project named “Sustainable Development Networking Programme” (SDNP). With the help of some individuals and ISPs BDIX was established.

From then more than 50 ISPs and Mobile/data operators got connected through BDIX.

 

What are the benefits?

Saves International Bandwidth

Well it is easy to guess what the benefits are. Local bandwidth remains locally. It means when one user from an ISP sends a files to another user in another ISP – the data does not need to travel out of the country. This keeps the International gateways free of data required to travel within the country. This saves the precious International Bandwidth.

Low Latency

Another benefit is – very low latency. In case of local traffic – data first goes to the BDIX from the source ISP and BDIX routes the data to destined ISP. This is only a matter of 3/4 hops/nodes. This means data travels faster.

High Data Volume

One major benefit is – a huge data can be transferred among the the local users. Since ISPs can get high bandwidth easily from BDIX.

Saves a lot of money to ISPs and End users

Low Cost + High local bandwidth – causing most of the ISPs to get connected to BDIX. BDIX bandwidth is way cheaper than actual International Bandwidth. Moreover, ISPs are creating local FTP server – where they store a bulk of movies, songs, games etc – which used to consume a lot of International Bandwidth. Now users download movies, songs, games etc – but it doesn’t use International Bandwidth keeping that one for much important uses. ISPs are now able to offer very low rate for Internet subscription as they can serve more people with less International bandwidth. End Internet users are getting higher bandwidth at lower cost.

New Features and Services

A lot of local sites have emerged with live TV facility, Local FTP servers, game servers etc. Volume of Data is not a problem if it remains locally.

 

Redundancy

We are developing our own local Internet through BDIX – and if for some reasons – International gateways are disrupted – we are less affected. Although International data transfer may be interrupted but local data communication will still remain running.

 

BDIX membership fee:

10,000 taka for 100mbps port

20,000 Taka for 1GB port.

 

Please visit BDIX website to learn more about them.

Facebook temporarily unavailable – January 27, 2015

Facebook was unavailable for about an hour today. Not sure what happened but this is what I found when I tried to browse FACEBOOK.COM

facebook unavailable - January 27, 2015

UPDATE: From further search on this issue I came to know that the famous Lizard Squad (Black Hat Hacking Group) is responsible for the Facebook down issue. A huge DOS attack has taken down Facebook, Instagram and other social media sites.

Lizard Squad - Black Hat Hacker Group

Hindi movies in Bangladeshi Theatres and multiplexes

Hindi Movie wanted in Bangladeshi Cinema halls

Hindi Movies will be screened in Bangladeshi theatres soon. Government has lifted the ban on screening Hindi cinema in Bangladesh. Prabhu Deva Directed Salman Khan’s Movie “WANTED” will be the first movie to be shown in Bangladeshi Cinema Halls. The screening may start right from next friday if the censor board permits.

Three more movies – Three Idiots, Tarey Zameen Par and Dhoom3 are the next three movies waiting in the list.

The debate on showing Hindi Cinema in Bangladeshi multiplexes  has been going on for a long time. There are enough excuses for debaters of both the sides who oppose and talks for showing Hindi cinema in Bangladesh. People who are in favor of showing Hindi Cinema are telling that – it will save the cinema halls and create a competition with local movies – which ultimately will improve the quality of Bangladesh Cinema Industry.

On the other hand – people who oppose are saying that – Hindi movies will destroy the in-house movie industry. They are also saying – Indian culture will destroy that of Bangladesh’s.

Source: Prothom-Alo.

WhatsApp, Line and MyPeople Blocked in Bangladesh

WhatsApp Line and Mypeople blocked in Bangladesh

Three more instant messaging and Internet calling software got blocked in Bangladesh – just one day after blocking another popular program Viber. From an unconfirmed source – I could learn that these are blocked till 21st January with an excuse of security concern.

Although officials said these will be unblocked by 21st January – but many are fearing it will not be. The government blocked Youtube earlier a couple of years back. Many other Google services were interrupted due to this block. It took a long time for the unblock that time.

Whatever the reason for the block the Government may provide – it is never accepted positively among the users. The new generation is highly dependent on these services – which are known to be famous for their free text messaging and Internet voice calls.

Skype, Google Talk (Hangout) and Facebook calling services are still running fine but many are fearing blocks might be imposed on these too.

 

BTRC Website Hacked in protest of blocking Viber and other similar services

BTRC Logo

A group of Bangladeshi hackers have hacked the website of BTRC. They did put a logo of theirs’ in BTRC website homepage. BTRC probably taken the site down immediately. The website www.btrc.gov.bd is still down ( 1am 19-01-2015).

It has been referred from an unconfirmed source that – the hacking has taken place in protest of BTRC’s recent action on shutting down popular Internet calling services like Viber, Tango, Line etc.

Viber and similar Instant messaging services are blocked in Bangladesh

viber001

The Government of Bangladesh has blocked Viber and similar popular instant messaging and Internet calling services in Bangladesh. Bangladesh Telecom Regulatory Commission (BTRC) has sent a letter to all the mobile operators and International Internet Gateway (IIG) providers to shut the services of these services.

While most of the users of Mobile operators are unable to use these services – some other ISP users are still able to use Viber and those blocked services.

Source: Dhaka Tribune.

 

Why Google Drive is the better choice than Dropbox in Bangladesh

Google Drive is better than Dropbox

If you are residing in Bangladesh and you are using Dropbox as you cloud storage solution – It is good time to switch to Google Drive. There are many other reasons why Google drive is preferable – but the most important of those is the network speed issue in Bangladesh.

I would not start the debate on which one offers better service – or premium version of which one is cheaper (Although I will clearly put Google Drive ahead in this race).

Many of the ISPs in Bangladesh offer higher speed (compared to actual Internet Bandwidth) for YOUTUBE. For example: someone with 2mbps Internet connectivity may get 10mbps speed when (s)he streams through Youtube.

I am not sure how this higher bandwidth is supplied for Youtube, but as far as I remember reading a news which said Google to get some bandwidth from BTCL/BSCCL. Due to (whatever) arrangement Google had – people in Bangladesh are getting bandwidth in abundance when using Google services. This includes accessing Google Play store and Google Drive as well. I noticed I get way higher speed when I download attachment from Gmail as well.

Therefore, if you switch to Google drive from Dropbox – you’ll get higher speed for Google Drive. File transfer will be much faster.

THIS IS APPLICABLE IF YOUR ISP IS OFFERING HIGHER BANDWIDTH FOR YOUTUBE.